প্রথমবারের মতো ভারতে করোনাভাইরাস রোগী পাওয়া গেছ

প্রথমবারের মতো ভারতে করোনাভাইরাস রোগী পাওয়া গেছে, এই রোগ এটি হচ্ছে একটি তরুণী কেরালা রাজ্যের একটি তরুণীর শরীলে এই রোগের লক্ষণ বা আক্রান্ত  লক্ষণ পাওয়া গেছে সে কারণেই তরুণীকে হাসপাতালে চিকিৎসা করার জন্য ও এই রোগটি শনাক্ত করার জন্য দেশটির কেরালা রাজ্যের একটি হাসপাতালে ওই তরুণীকে চিকিৎসা করার জন্য নিয়ে যাওয়া হয় এবং বৃহস্পতিবার এর ব্যাপারে নিশ্চিত ভাবে তথ্য প্রকাশ করা হয় যে ওই তরুনীর শরীরে করোনা ভাইরাসের লক্ষণের চিহ্ন পাওয়া যায়

ভারতের এক বিশ্বস্ত টিভি চ্যানেলের বা একটি পত্রিকায় ওই রোগের সম্পর্কে জানান ওই রোগী চীনের উহান শহরের একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়াশুনা করতেন এবং তিনি ছিলেন চিকিৎসাশাস্ত্রের ছাত্রী তিনি ।

চীনের উহান শহরে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের পরে তিনি ভারতবর্ষে ফিরে আসেন এবং তিনি তার নিজ বাসা কেরালা রাজ্যে | কেরালা রাজ্যের হসপিটালে তার রোগটি সম্পর্কে সঠিক তথ্য পাওয়ার পর তাকে আলাদা করে হসপিটালে চিকিৎসাধীন রাখা হয়েছে ।

স্থানীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বলেছেন যে ওই ছাত্রী ওয়ান বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন চিকিৎসাশাস্ত্র ছাত্রী তার শরীরে রোগ পাওয়াতে এই রোগের লক্ষণ পাওয়াতে তাকে হসপিটালে আলাদা করে চিকিৎসা করা হচ্ছে এবং ওই তরুণী বা ওই রোগীকে গভীর পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে এবং তার শারীরিক অবস্থা স্বাভাবিক আছে ।

কেরালার স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেছেন ওই তরুণীকে পরীক্ষার মাধ্যমে তার রোগটি শনাক্ত করা হয়েছে, সেটি হলো করোনাভাইরাস ওই রোগীর পরীক্ষার করার পর একটি রোগের মিল পাওয়া যায় করোনা ভাইরাস এর সাথে ।

  এখনো তিনটি পরীক্ষা বা নমুনা বাকি আছে তারা এখনো ফল হাতে আসেনি ওই রোগী চীনের উহান শহর থেকে ফিরে আসার পর কেরালা রাজ্যের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আছেন এবং তার চিকিৎসা চলতেছে কেরালা রাজ্যের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় তাকে গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ ও পর্যালোচনা করে চলছে তবে তার শারীরিক অবস্থা গুরুতর নয় তার শারীরিক অবস্থা স্বাভাবিক আছে
কেরালার স্বাস্থ্য মন্ত্রী আরো বলেন চীন থেকে আসা সকল মানুষদের বা সকল শিক্ষার্থীদের সঠিকভাবে গভীরভাবে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে তাদের বাড়ি বা তাদেরকে ছাড়া হচ্ছে যদি কোন ব্যক্তিকে সন্দেহ হয় তাকে আলাদা ওয়ার্ডে পরীক্ষা করা হবে এবং তাদের চিকিৎসা করা হবে এবং সন্দেহভাজন আরো তিন রুগীকে ওই হসপিটালে আলাদা ওয়ার্ডে রাখা হয়েছে

কেরালার স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেছেন করনা ভাইরাসের আক্রমণের ফলে ভারতবর্ষে ও কেরালা রাজ্যে 900 জনের মত মানুষকে নজরদারি করা হয়েছে তাদের প্রত্যেকের বাড়িতে নজরদারি করা হয়েছে পরিস্থিতি মোকাবেলায় তারা তাদের পজিশন অনুযায়ী প্রস্তুত রয়েছেন

কলকাতা দিল্লী মুম্বাই পাঞ্জাব সহ বেশকিছু রাজ্যের হসপিটালে এই রোগের লক্ষণ ও রোগীদেরকে রাখা হচ্ছে এবং তাদের পরীক্ষা করে সঠিক তথ্য পাবার পর তাদেরকে বাড়িতে যেতে দেওয়া হচ্ছে কোন রোগীকে সন্দেহভাজন হলে তাকে আলাদা করে চিকিৎসা করার জন্য রাখা হচ্ছে ।

ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বলেছেন গত 1 জানুয়ারি থেকে 31 জানুয়ারি পর্যন্ত যত মানুষ চীনের উহান শহরে গিয়েছেন তাদের যদি শ্বাসকষ্ট বা সর্দি কাশি ও জ্বর হয়ে থাকে তাদেরকে হাসপাতালে চিকিৎসা করার কথা বলা হয়েছে এর মধ্যে ভারতের প্রত্যেকটি রাজ্যের বিমানবন্দরে প্রাথমিক চিকিৎসার জন্য 30 হাজার যাত্রীকে পরীক্ষা করা হয়েছে ।

চীনের উহান শহরে কারনা ভাইরাসের আক্রমণে বা আক্রান্ত হয়ে প্রায় 180 জনের মৃত্যু হয়েছে এবং আক্রান্ত হয়েছে 8 হাজারের উপরে ভাইরাসটি চীনের প্রত্যেকটি শহরে প্রত্যেকটি অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে এ নিয়ে চীন সহ পুরো বিশ্বের স্বাস্থ্য সংস্থার উদ্বেগ প্রকাশ করেছে ।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *