Corona virus চীনে করানো ভাইরাসে আক্রান্তের খবর

শুধুমাত্র হালাল খাদ্যের কারণে করোনা ভাইরাস থেকে নিরাপদে আছেন চীনের মুসলমানরা বিস্তারিত

চীনের উহান ও হুবেই শহরে থেকে করোনাভাইরাস এর সৃষ্টি হয় এবং সেখান থেকে শুরু করে চীনের প্রত্যেকটি শহরে এখন করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে এবং এখন এটি বিশ্বের কাছে একটি আতঙ্কিত ও মহামারী রোগে  পরিণত হয়েছে এখন পর্যন্ত করোনা ভাইরাস আক্রান্ত হয় ৬০০ উপরে মানুষ মারা গেছে, এবং এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে হাজার হাজার মানুষ ভর্তি আছে এই ভাইরাসটি এখন বিশ্বের অনেক দেশে ছড়িয়ে পড়েছে চীন সহ আরো অনেক দেশে যেমন- ইন্ডিয়া, জাপান, ভিয়েতনাম, হংকংসহ বিশ্বের বেশ কয়েকটি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে ।

বিশ্বের প্রত্যেকটি দেশের মানুষ করোনাভাইরাস নিয়ে আতঙ্কিত হয়ে আছেন, চীনের সাথে বিশ্বের প্রত্যেকটি দেশের এয়ারলাইনস ও বিমান আকাশ পথের যোগাযোগ সহকারে প্রত্যেকটি যোগাযোগ বন্ধ করে দিচ্ছে, কারণ বিশ্ব প্রত্যেকটি দেশ করোনা ভাইরাসের আতঙ্কের কারণে চীনের সাথে প্রত্যেকটি দেশের যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে এবং মানুষের মধ্যে এক ধরনের আতংক ছড়িয়ে পড়ছে একটি ঘৃণ্য জাতি হিসেবে পরিণত হয়েছে চীন জাতি ।

চীন দেশে এত বড় একটি মহামারী রোগে আক্রান্ত হয়ে পুরো বিশ্ব আতঙ্কিত হয়ে রয়েছে কিন্তু উইঘুর মুসলমানদের কেমন কাটছে দিন তা জানানো হলো ।

সম্প্রতি একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে সি এন এন, এর একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে যে উইঘুর মুসলমান তাদের হালাল উপার্জন বা হালাল খাবারের মাধ্যমে বা হালাল খাবার খাওয়ার কারণে তাদেরকে এ করোনাভাইরাস নামের মহামারী রোগটি আক্রান্ত রোগটিতে আক্রান্ত হচ্ছে না ।
তাদের বিশ্বাস তাদের হালাল রুজি ও হালাল খাবার এবং আল্লাহর ইবাদাতের কারণে এ রোগটি তাদেরকে আক্রমণ করছে না, কিন্তু তারা আরও বলেছে পুরো বিশ্বে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ছে তারা বলেছেন যে এর উক্তি যখন সংক্রমণকারী তাই তারা সাবধানে ও নিরাপদে চলাফেরা করছেন, এই রোগটি সকলের মাঝে ছড়িয়ে পড়ে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকতে পারে তাই তারা নিজেদের নিজ নিজ জায়গা থেকে সর্তক অবস্থানে রয়েছেন ।

উল্লেখিত করোনা ভাইরাস সম্পর্কে বিভিন্ন সূত্রে পাওয়া গেছে যে, বাদূর থেকে বা বন্যপ্রাণীর থেকেই করোনা ভাইরাসটি সৃষ্টি হয়েছে, চীন দেশের নাগরিকরা বিভিন্ন জাতের প্রাণী খেয়ে থাকেন, তাদের দেশের জনপ্রিয় খাবার বিভিন্ন বন্যপ্রাণী খেতে তারা খুবই ভালোবাসে, তাদের দেশের এই খাবার গুলোতে অতিরিক্ত মাত্রায় জীবানু থাকে ।

তাদের এই জনপ্রিয় খাবারগুলো তালিকায় রয়েছে – সাপ, ইঁদুর, টিকটিকি, তেলাপোকা ফ্রাই এবং নানারকম কীটপতঙ্গ বাদুড়ের জুস এই খাবারগুলো চীনের জনপ্রিয় খাবারের অন্যতম খাবার, এই কয়েকটি খাবার তাদের দেশের জনপ্রিয় খাবার বলা হয়, আর এই খাবারগুলো  তাদের দেশের প্রত্যেকটি দোকানে পাওয়া যায় ।
এই খাবার গুলোর মাধ্যমেই করোনা ভাইরাসের সৃষ্টি হয়েছে এবং তা থেকে এই ভাইরাসটি পুরো বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছে ।

মুসলমানদের খাদ্য তালিকায় হারাম ও হালালের বিভক্ত থাকায় তারা এসব খাবার ভক্ষণ করে না বিদায় চীনের এই কঠিন পরিস্থিতির মাধ্যমে বেশ নিরাপদ রয়েছেন মুসলিম চীনের মুসলিমরা ।
কেননা চীনে মুসলিমদের খাবার ও মুসলমানদের খাদ্য তালিকায় সব সময় হালাল খাদ্য ভক্ষণ করে থাকেন মুসলমানরা তাদের খাদ্যতালিকায় হালাল খাবার খেয়ে থাকেন এবং তাদের খাদ্য সর্বদাই হালাল ভাবে পরিবেশন করে থাকেন তাই তারা এই করোনাভাইরাস থেকে একটু নিরাপদে আছেন ।

চীনের স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বলেছেন যে এই করোনা ভাইরাসের ফলে সবাইকে সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়েছেন এবং সবাই দূরত্ব বজায় রেখে চলাফেরা করার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে,
আক্রান্ত রোগীদের থেকে দূরত্ব বজায় রাখতে বলা হয়েছে তাদের সাথে মিলা মিশার থেকে বিরত থাকতে বলা হয়েছে ।
ভাইরাস আক্রান্ত রোগীদের থেকে দূরে থাকতে বলা হয়েছে, সেই রোগীদের হসপিটালে চিকিৎসা গ্রহণ করার পরামর্শ দিয়েছেন এবং সেই রোগীদের দেখার জন্য তাদের পরিবারের কাউকে আসতে নিষেধ করা হয়েছে যাতে এই রোগীর সম্পূর্ণভাবে সুস্থ না হওয়া পর্যন্ত সেই রোগীকে দেখার জন্য তাদের পরিবারের কাউকে হাসতে নিষেধ করা হয়েছে, তার কারণ এই রোগটি যেন তার পরিবার অন্য কারো শরীরে প্রবেশ না করে সেজন্য এই ভাইরাসে  সবাইকে সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়েছেন,

এবং সবসময় মাক্স ব্যবহার করে চলাফেরা করার পরামর্শ দিয়েছেন এবং নিয়মিত হাত ধোয়ার বারবার হাত দেওয়ার কথা বলেছেন, জ্বর সর্দি কাশি এবং পেট ব্যথা হলে ডাক্তারের পরামর্শ নিতে বলা হয়েছে এবং সর্বদাই বাহিরে বের হলে  মুখে মাক্স ব্যবহার করে বের হতে বলা হয়েছে ।

মানুষের মুখের সামনে দাঁড়িয়ে কথা বলতে নিষেধ করা হয়েছে যাতে তার শরীরের বা দেহের ভাইরাসটি অন্যান্যদের দেহে ছড়িয়ে পড়তে না পারে,

সে ব্যাপারে নজর রাখতে বলছে এবং করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রোগীদের সাথে কথা বা দেখা করার জন্য নিষেধ করেছে যাতে তার দেহের ভাইরাসটি অন্যান্যদের দেহে ছড়িয়ে না পারে সে ব্যাপারে সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে ।

এখন পর্যন্ত করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ৭০০ জনের মৃত্যু হয়েছে এবং ১৮০০০ হাজার জনের মতো আক্রান্ত হয়েছে,
করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত ৭০০ জনের মৃত্যু হয়েছে এবং ১৮০০০ হাজার জনের মতো আক্রান্ত হয়ে হসপিটালে ভর্তি হয়েছে,
আজকে বৃহস্পতিবার সকালে মার্কিন সংবাদমাধ্যম সি এন এন এ খবর প্রকাশ করেছে, এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছে এবং ১৮ হাজারেরও বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়ে হসপিটালে ভর্তি আছে ।

তাই এই ভাইরাস নিয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা পরামর্শ অনুযায়ী সকলকে সতর্কতার সহিত চলাফেরার পরামর্শ দিয়েছেন এবং নিয়মিত পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন ভাবে চলাফেরা করতে বলা হয়েছে এবং বার বার সাবান দিয়ে হাত ও মুখ পরিষ্কার রাখতে বলা হয়েছে  ।

জামাকাপড় পরিষ্কার রাখতে বলা হয়েছে এবং মানুষদের মুখের সামনে দাঁড়িয়ে কথা বলতে নিষেধ করা হয়েছে মানুষদের সাথে দূরত্ব বজায় রেখে কথা বলার জন্য বলা হয়েছে এবং বাহিরে চলাফেরার জন্য মার্কস ব্যবহার করতে বলা হয়েছে ।

সবাইকে আল্লাহ তায়ালা হেদায়েত দান করুক,
সবাইকে আল্লাহ এ করোনাভাইরাস থেকে হেফাজত করুক,
সংবাদটি আপনিও সঠিকভাবে পড়ুন এবং অন্যকে পড়তে সাহায্য করুন,
তাই এই সংবাদটি শেয়ার দিয়ে আপনার সকল বন্ধুদের মাঝে তুলে ধরুন ।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *