হঠাৎ করে চালের দাম বৃদ্ধি

হঠাৎ করে আগুন চালের বাজার চট্টগ্রামে বস্তায় বেড়েছে ৫০০ টাকা

করোনা ভাইরাসের কারণে যখন বন্ধ করা হচ্ছে একের পর এক প্রতিষ্ঠান ও জনসমাগমস্থল তার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে হঠাৎ করেই বাড়ছে নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রীর দাম এর সবচেয়ে বেশি প্রভাব পড়েছে চালের পাইকারি বাজারে একদিনের ব্যবধানে সর্বোচ্চ ৫০০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে চট্টগ্রামের বাজারে, চাক্তাই, খাতুনগঞ্জ, আড়তদার ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির কর্তৃপক্ষের দাবি করোনার জন্য চালের দাম বাড়েনি ধানের সংকটে কল মালিকরাই চালের দাম বাড়িয়েছে ।

সরেজমিনে চট্টগ্রামের বিভিন্ন বাজারে বাজারে ঘুরে চালের দাম বাড়ার সত্যতা মিলছে পাইকারি বাজারে চালের দাম বাড়ার প্রভাব পড়েছে চট্টগ্রামের কাজীর দেউড়ি, চকবাজার, রিয়াজউদ্দিন বাজার, বহদ্দারহাট, সহ সব খুচরা বাজারে বস্তা প্রতি চাউলের দাম ১০০ থেকে সর্বোচ্চ ৫০০ পর্যন্ত বেড়েছে ।

মঙ্গলবার ১৮ ই মার্চ যে চিনিগুড়া চালের দাম ছিল ৪৪০০ টাকা পরদিন বুধবার সেটা ৫০০ টাকা বেড়ে ৪৯০০ টাকায় পাইকারি বিক্রি হচ্ছে, মঙ্গলবার মিনিকেট ছিল ১৯৫০  টাকা বুধবার ২১০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছিল, কাটা রিভোগ মঙ্গলবার ছিল ২৭০০ টাকা বুধবার সেটি বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৮৫০ টাকায়, বাজারে সিদ্ধ সালের দাম ছিল ১৮০০ টাকা বুধবার সেটি বেড়ে দাঁড়ায় ১৯৫০ টাকায়, বেতি চালের দাম ছিল ১৭০০ টাকা থেকে বেড়ে হয়েছে ১৮৫০ টাকা, কাটারি সিদ্ধ চালের দাম ২০৫০ টাকা থেকে হয়েছে ২১৫০ টাকায় ।

ক্রেতারা অভিযোগ করে বলেন অতিরিক্ত মুনাফার জন্য বাজারে করোনার গুজব ছড়িয়ে চালের কৃত্রিম সংকট তৈরি করছে ব্যবসায়ীরা হঠাৎ চালের দাম বৃদ্ধি নিয়ে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা বলেন, আমরা আজব দেশে বসবাস করি কোন কিছু হলেই গুজব ছড়িয়ে নিত্যপণ্যের কৃত্রিম সংকট করে দেশের মানুষকে জিম্মি করা হয় একদিনের ব্যবধানে চালের দাম এত বৃদ্ধি ভাবা যায় না সামনে দিন কেমন হবে সেটাও চিন্তার বিষয় ।

চট্টগ্রামসহ বিভিন্ন জেলায় জেলায় চালের দাম ও নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী দাম একদিনের ব্যবধানে অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে করোনা ভাইরাসের কারণে বাজারে গুজব ছড়িয়ে কিছু অসাধু চক্র বা কিছু অসাধু ব্যবসায়ী করোনা ভাইরাস নামে গুজব ছড়িয়ে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম বাড়িয়ে তুলছে তারা অধিক মুনাফা কারণে এ কাজটি করেছে বলে মনে করা হচ্ছে ।

এদিকে জিনিসপত্রের দাম বাড়বে ভেবে তাই অনেকেই  আগেভাগে কেনাকাটা মার্তা বাড়িয়ে দিয়েছেন, চট্টগ্রাম নগরীর মুদি দোকানদার বলেন করোনা ভাইরাসের অজুহাতে অসাধু ব্যবসায়ীরা নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দাম বাড়িয়ে দিতে পারে বিশেষ করে চালের দাম বাড়তে শুরু করেছে ।

এজন্য মানুষ বেশি বেশি নিয়ে ঘরে জমা রাখছে সবাই, ব্যবসায়ীরা বলেন কাস্টমাররা বেশি বেশি নিচ্ছে আমরা দোকানদাররা কি বলবো কিছু বলতে না পেরে বাধ্য হয়ে কাস্টমারের চাহিদা পূরণ করতে হচ্ছে, এমন মজুদ আর কৃত্রিম সংকট আরো কয়েকদিন চলতে থাকলে দিনমজুর খেটে খাওয়া মানুষগুলোর অবস্থা খুব করুন হবে ।

তাই দয়া করে কিছু মুনাফার জন্য সমাজেও দেশে বিভ্রান্তিকর গুজব ছড়াবেন না এতে অসহায় ও দরিদ্র মানুষদের অনেক কষ্ট করতে হয় অসহায় ও দরিদ্র মানুষের কথা বিবেচনা করে এমন কিছু করবেন না যাতে সকলের জন্য কষ্টসাধ্য হয়ে যায় অধিক মুনাফার কারণে এমন গুজব ছড়ানো থেকে বিরত থাকুন ধন্যবাদ

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *